আন্তর্জাতিক, বাংলাদেশ

ইরানের সাথে যুদ্ধ চায় না যুক্তরাষ্ট্র

ইরানের সাথে কোন যুদ্ধ চায় না বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

 

আমেরিকা যখন মধ্যপ্রাচ্যে একের পর এক রণতরী পাঠিয়ে ইরানের সঙ্গে উত্তেজনা বাড়িয়ে চলেছে তখন এ বক্তব্য দিলেন পম্পেও।

 

রাশিয়া সফররত পম্পেও মঙ্গলবার রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে এক বৈঠকের পর জানান তারা আমরা মূলত ইরানের সঙ্গে যুদ্ধে যেতে চাচ্ছে না। তবে মার্কিন স্বার্থে আঘাত আসলে ওয়াশিংটন উপযুক্ত উপায়ে তার জবাব দেবে বলে ইরানকে সতর্ক করে দেন তিনি।

 

মাইক পম্পেও ইরানের বিরুদ্ধে বিশ্ব জনমত গঠনে ব্যর্থ হওয়ার পর তেহরানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে না যাওয়ার কথা জানালেন। তিনি সোমবার রাশিয়া সফরে যাওয়ার পথে ব্রাসেলসে অনির্ধারিত যাত্রাবিরতি করেন। ইউরোপীয় দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদেরকে ইরান বিরোধী পদক্ষেপে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে তিনি ওই যাত্রাবিরতি করলেও ইউরোপীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা পম্পেওর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে অস্বীকৃতি জানান। শেষ পর্যন্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা ফেডেরিকা মোগেরিনির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেই মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে সন্তুষ্ট থাকতে হয়।

 

এরপর রাশিয়া সফরে গিয়ে নিজের ইরান নীতির প্রশ্নে রাশিয়ার কঠোর বিরোধিতার সম্মুখীন হন মাইক পম্পেও। রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ স্পষ্ট জানিয়ে দেন, পাশ্চাত্যের সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে ওয়াশিংটন বেরিয়ে গেলেও এর প্রতি রাশিয়ার পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। এ সমঝোতা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করে উত্তেজনা প্রশমনের আহ্বান জানান ল্যাভরভ।

 

এদিকে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনিও বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তাঁরাও কোনো যুদ্ধ চান না।

 

প্রসঙ্গত, গত বছর ২০১৫ সালে ছয় বিশ্বশক্তির সাথে তেহরানের স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বের হয়ে যাওয়ার ঘোষণার পর ইরানের ওপর চাপ বৃদ্ধি অব্যাহত রাখে ওয়াশিংটন। সেই ধারাবাহিকতায় গত সপ্তাহে উপসাগরীয় এলাকায় যুদ্ধজাহাজ ও যুদ্ধবিমান মোতায়েন করে যুক্তরাষ্ট্র। রবিবার আমিরাতের উপকূলে চারটি ট্যাঙ্কারে বিস্ফোরণের পর যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা আরও বৃদ্ধি পায়।

 

মার্কিন তদন্তকারীদের ধারণা, ইরান বা ইরান-সমর্থিত কোনো গোষ্ঠী এই হামলায় জড়িত।

 

তবে হামলার ঘটনায় ইরানের জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ এখন পর্যন্ত মেলেনি। ইরানও দাবি করেছে, তারা এই হামলার সঙ্গে জড়িত নয়। তারা তদন্তের দাবি জানিয়েছে।

 

ফাআ/জার/ফাআ

 

LIVE
Play
রাইড শেয়ারিংয়ের অর্থনীতি
প্রাণি নির্যাতন- মানুষ নির্যাতনের প্রাথমিক পর্যায়
প্রতিরোধ করো!
আজি হতে শতবর্ষ আগে