ফিচার, বিচিত্র বিশ্ব, ভ্রমণ ,

উগান্ডা কি কেবল অভাব-অনটনের দেশ?

ফারহানা মৌলি

উগান্ডা নামটি শুনলেই অনেকে বলবেন আফ্রিকান কালোদের দেশ, অভাব-অনটনের দেশ। এই প্রচলিত ধারণার বাইরে দেশটিতে কি আছে?

চলুন পূর্ব আফ্রিকার বৈচিত্রময় দেশটি নিয়ে জেনে নেয়া যাক কিছু তথ্য-

১. দেশটির জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেকের বয়স ১৪ বছরের কম। একারণে উগান্ডাকে তারুণ্যের দেশ বলা হয়ে থাকে।

২.স্যার উইনস্টন চার্চিল উগান্ডাকে “আফ্রিকার মুক্তো” বলেছেন। ব্রিটিশ শাসনের অধীনে থাকাকালীন সময়ে তিনি উগান্ডায় গিয়েছিলেন।

৩. উগান্ডাকে বলা হয় “আফ্রিকার ফলের ঝুড়ি”। দেশটির মাটি খুব উর্বর, যে কারণে সেখানে প্রচুর ফসল ফলে। এখান থেকেই আফ্রিকা মহাদেশের বেশিরভাগ জায়গায় খাদ্য সরবরাহ করা হয়। এখানকার আনারস খুবই সুস্বাদু। আপনি যদি কখনও উগান্ডায় আনারস খেয়ে থাকেন তবে সে স্বাদ সারাজীবনে ভুলতে পারবেন না।

৪. উগান্ডা প্রতি বছর ৮ লাখের বেশি পর্যটককে স্বাগত জানায়।

৫. উগান্ডার প্রেসিডেন্টের নাম ইউয়েরি কাগুতা মুসাভিনি । তিনি ৩৯ বছর ধরে দেশটি শাসন করছেন।

৬. উগান্ডায় প্রচুর হ্রদ এবং নদী রয়েছে। বিশুদ্ধ পানির ভাল উৎস থাকায় আফ্রিকার অধিবাসীরা এই দেশকে “আফ্রিকার বিশুদ্ধ পানির আধার” নাম দিয়েছেন।

৭. সারা বিশ্বের মধ্যে উগান্ডার নারীরা সবচেয়ে বেশি সংখ্যক সন্তান প্রসব করেন। উগান্ডায় প্রত্যেক নারী গড়ে প্রায় ৬টি সন্তানের জন্ম দেন।

৮. অপরূপ জীববৈচিত্রের দেশ উগান্ডা। এখানে দেখা মেলে হরেক রকম শিম্পাঞ্জি, রং বেরংয়ের অনেক ধরণের প্রজাপতি আর গরিলার। পূর্ব আফ্রিকার অন্য কোন দেশের তুলনায় এখানে গরিলার দেখা মেলে বেশি। আর এত রং বেরংয়ের প্রজাপতি পৃথিবীর আর কোন দেশে খুব একটা দেখা যায় না।

৯. উগান্ডা জাতিগত ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যপূর্ণ একটি দেশ। আপনি যদি পুরো উগান্ডা থেকে  দু’জনকে বাছাই করেন তবে বেশিরভাগ সময় তাদের মধ্যে জাতিগত সংস্কৃতির ভিন্নতা থাকবেই।

১০.  উগান্ডার অধিবাসীরা ৩০টির বেশি ভাষায় কথা বলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LIVE

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশ

আক্রান্ত
২৫৭৬০০
সুস্থ
১৪৮৩৭০
মৃত্যু
৩৩৯৯
সূত্র:আইইডিসিআর

বিশ্ব

আক্রান্ত
১৯৮২৪০৩৯
সুস্থ
১২৭৩২৫৪৬
মৃত্যু
৭২৯৯১০
সূত্র: ওয়ার্ল্ড মিটার
আজ জহির রায়হানের জন্মদিন
বৈরুত বিস্ফোরণের অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট কী পদার্থ?
এন্ড্রু কিশোরের সেরা ৫ গান
চোখে মুখে মৌমাছি নিয়ে চার ঘণ্টা!