ফিচার, বিনোদন , ,

কেটি পেরির আশা-নিরাশার গল্প

২০১১ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত টানা আট বছর কেটি পেরি বিশ্বের সংগীতজগতের সবচেয়ে বেশি অর্থ উপার্জনকারী তারকা। কিন্তু এ সময়টাই নাকি ছিল তার সবচেয়ে হতাশার সময়। সম্প্রতি ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কেটি পেরি জানালেন জানা অজানা নানা কথা। প্রেম-হতাশা-নতুন বছর নিয়ে তাঁর পরিকল্পনা আরও কতকি। চলুন জেনে নিই কি বলেছিলেন তিনি।

২০১১ সালের কথা। সবকিছু তৈরি। কনসার্টে গাইবেন কেটি। মঞ্চে ওঠার আগে পেলেন একটি খুদে বার্তা। পাঠিয়েছেন স্বামী রাসেল ব্র্যান্ড। সেই খুদে বার্তা পড়ে জানতে পারলেন, রাসেল ব্র্যান্ড আর তাঁর সঙ্গে সংসার করতে চান না। তারপর চোখ মুছলেন, মঞ্চে উঠলেন, গাইলেন, কাঁদলেন। সেই কান্নাকে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতারা ভেবেছিল পারফরম্যান্সের অংশ।

তারপর কেটি পেরি প্রেম করেছেন আরেক সংগীতশিল্পী জন মেয়ারের সঙ্গে। বাগদানও হলো। তারপর সেই বাগদান ভেঙে যায়। আবার হৃদয় ভাঙে কেটির।

তারপর সেই ভাঙা হৃদয় জোড়া লাগাতে কেটির জীবনের রঙ্গমঞ্চে আসেন রবার্ট প্যাটিনসন। একদিন অতীত হয়ে যান ‘টোয়ালাইট’ ছবির এই তারকা।

২০১৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি কেটিকে ভ্যালেন্টাইনস ডের পার্টিতে হীরার আংটি পরিয়ে দেন ‘ট্রয়’ ছবির তারকা অরল্যান্ডো ব্লুম। এভাবে নিজেদের তিন বছরের সম্পর্ককে পোক্ত করে আরেকটু এগিয়ে নেন তাঁরা।

এবার ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কেটি পেরি বললেন নতুন বছর নিয়ে তাঁর ‘বাকেট লিস্ট’। মনোবিজ্ঞান আর দর্শন নিয়ে পড়তে চান। আর মানুষকে ভালো কিছু করতে অনুপ্রাণিত করতে চান। কেটি পেরি তাঁর হতাশার সময়গুলোর কথা বলতে গিয়ে জানান, তখন তাঁকে মনোরোগ বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হতে হয়েছে। তখন সারা দিন ঘরের দরজা বন্ধ করে বিছানায় শুয়ে থাকতেন।

৩৫ বছর বয়সী এই তারকা জানান ১২ বছরেরও বেশি সময় ধরে মানুষ তাকে চোখে চোখে রেখেছে। এই এক যুগে তিনি অনেক ভুল করেছেন। তবে জীবনযুদ্ধে হেরে যেতে চাননা কেটি। জীবনের ইতিহাসে পড়ে যাওয়ায় গল্পগুলো থাকে না, থাকে উঠে দাঁড়ানোর গল্প। এখন সুখে আছেন, মনের সুখে গান লিখছেন, গাইছেন।

LIVE


মোবাইল-টিভিতে চোখ, কতটা ক্ষতি হচ্ছে শিশুর!
কেন নেবেন কাউন্সেলিং সেবা?
টেইলর সুইফটের প্রতিদিনের রুটিন
আমাজন রেইন ফরেস্টের নিধন বেড়েছে ৮৫ শতাংশ