বাংলাদেশ, শীর্ষ খবর

ক্যাম্পাসে না থাকলেও লাখ লাখ টাকা বিল ভিসির নামে

মাসের পর মাস বিশ্ববিদ্যালয়ে যান না, থাকেন না উপাচার্যের বাসভবনেও। অথচ তাঁর আবাসিক ভবনের নামে আপ্যায়ন বিল তোলা হয় লাখ লাখ টাকা।

এ কাণ্ড করেছেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ। সরকারি গাড়ি পেলেও চড়েন বিমানে। সেই খরচও নেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে।

তুমুল সমালোচনা বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহকে নিয়ে। রংপুরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থাকার কথা থাকলেও থাকেন ঢাকায়। তবে সব খরচ তোলেন নিয়মিত।

অভিযোগ আছে, উপাচার্য ভবনের নামে নিয়মিত আপ্যায়ন বিল তোলেন তিনি। এ খাতে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২০ লাখ এবং ২০১৮-১৯ এ ২২ লাখ টাকা তুলে নেন উপাচার্য। এসব বিলের বেশিরভাগেরই ভাউচার ভুয়া বলে অভিযোগ আছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভা হয় ঢাকায়। কারণ উপাচার্য থাকেন এখানে। তাই অন্য সদস্যদের আসতে হয় রাজধানীতে। এতে করে সিন্ডিকেট সদস্যদের যাতায়াত ও থাকা-খাওয়ার খরচ দিতে হয়। এতে একেকটি সভায় খরচ হয় প্রায় দুই লাখ টাকা। এই খরচ শুধুমাত্র উপাচার্য ঢাকায় থাকার কারণে।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ফরিদুল ইসলাম বলেন, উপাচার্য কলিমুল্লাহ ঢাকায় আসা-যাওয়া করেন বিমানযোগে। আর এই খরচ বহন করতে হয় বিশ্ববিদ্যালয়কে।

ক্যাম্পাসে চার একর জমির উপর উপাচার্যের জন্য নির্মিত রাজকীয় বাসভবনটি অব্যবহৃত পড়ে রয়েছে। বাসভবনে দায়িত্ব পালন করেন এক ডজনের বেশি কর্মকর্তা-কর্মচারী। অথচ উপাচার্য থাকেন ঢাকায়। তাই বসে বসেই লাখ লাখ টাকা বেতন এসব কর্মকর্তা-কর্মচারী।

কলিমুল্লাহর বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে। এসব বিষয়ে বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলেও সাড়া দেননি উপাচার্য।

আমিমুল হাসান/ফই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LIVE

হেঁচকি ওঠার কারণ ও কমানোর উপায়
মশা তাড়াতে যেসব উপকরণ ব্যবহার করা যায়
গ্রিন টির ভালো-মন্দ
পাহাড়ের ভাষা, সমতলের ভাষা