আন্তর্জাতিক, বাংলাদেশ

জনসাধারণের কাছ থেকে অস্ত্র ফিরিয়ে নিচ্ছে নিউজিল্যান্ড

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিষিদ্ধ করে দেশটি। এবার নিষিদ্ধ করা সেই সব অস্ত্র জনসাধরণের কাছ থেকে ফিরিয়ে নেয়া শুরু করতে যাচ্ছে সরকার। এ জন্য এসব অস্ত্রের মালিকদের ক্ষতিপূরণ দিতে ২০৮ মিলিয়ন নিউজিল্যান্ড ডলার বরাদ্দ দিয়ে ছয় মাস মেয়াদী ‘অস্ত্র ক্রয়’ প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার একটি যৌথ বিবৃতিতে এই ঘোষণা দেন দেশটির অর্থমন্ত্রী গ্রান্ট রবার্টসন ও মিনিস্টার অব পুলিশ স্টুয়ার্ট নাস।

 

ক্রয় প্রকল্পের আওতায় দেশটির জনসাধরণের কাছে থাকা লাইসেন্স অস্ত্র আগামী ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে জমা দিতে হবে। এর বিনিময়ে অস্ত্রের বৈধ মালিকরা নতুন অস্ত্র ক্রয় করতে যে অর্থ ব্যয় করেছিল সেই সমান অর্থ ফেরত পাবে। এছাড়া জনগণের কাছে থাকা অস্ত্র ডিলারের মাধ্যমেও জমা নেয়া হবে।

 

মিনিস্টার অব পুলিশ স্টুয়ার্ট নাস বলেন, অস্ত্র ক্রয় এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হলো দেশটি থেকে বিপদজনক অস্ত্র সরিয়ে ফেলা। পুলিশ জনসাধরণের কাছ থেকে অস্ত্র সংগ্রহ করতে পরবর্তী ধাপ নিয়ে বিস্তারিত পরিকল্পনা করেছে। মধ্য জুলাই থেকে এসব অস্ত্র সংগ্রহ শুরু করে হতে পারে বলে জানান তিনি।

 

এর আগে প্রায় ৭০০ অস্ত্র পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিল এবং আরও  ৫ হাজার অস্ত্র  হস্তান্তর করার অপেক্ষায় রয়েছে। তবে ঠিক কি পরিমান অস্ত্র সাধারন জনগনের কাছে মজুদ আছে তা আগে থেকে অনুমান করা কঠিন বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষ।

 

উল্লেখ্য, গত মার্চে ক্রাইস্টচার্চের আল নুর ও লিনউড মসজিদে শুক্রবার নামাজ আদায় করার সময় আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি হামলা করেন উগ্রবাদী শ্বেতাঙ্গ ব্রেন্টন ট্যারান্ট নামে এক অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক। এই হামলায় বাংলাদেশীসহ ৫১ জন নিহত হন। হামলার পর গত এপ্রিলে আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিষিদ্ধ করে পার্লামেন্টে আইন পাস হয়।

 

ফাআ/জার/ফাআ
LIVE
Play
শিরোপা জিতলো ইংল্যান্ড, মন জিতেছে নিউজিল্যান্ড
ডেটিং অ্যাপ
তবুও স্বপ্ন দেখে যাই
ভারত সরকার কি মিথ্যা বলছে?