দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে শনাক্ত ২ হাজার ৪৮৭ জন। ৩৪ মৃতের মধ্যে ৩১ জন পুরুষ, ৩ জন নারী। ♦♦ দেশে মৃতের মোট সংখ্যা দাঁড়াল ৩ হাজার ৩৯৯ জনে। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৫৭ হাজার ৬০০ জন। ♦♦ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৭৬৬ জন। আর মোট সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১ লাখ ৪৮ হাজার ৩৭০ জন। ♦♦ করোনা উপসর্গ দেখা দিলে অথবা করোনা বিষয়ক জরুরি স্বাস্থ্যসেবা পেতে ৩৩৩ অথবা ১৬২৬৩ নম্বরে কল করুন এবং তথ্য পেতে www.corona.gov.bd ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন।। এ ছাড়া আইইডিসিআরের ইমেইল বা ১৬২৬৩ নম্বরে ফোন করা যাবে। ♦♦ www.livecoronatest.com এ আপনি ঘরে বসেই কোভিড-১৯ বা নভেল করোনা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত কি'না, তা নিজেই মূল্যায়ন করতে পারবেন। এমনকি আপনার ঝুঁকির মাত্রা ও করনীয় সম্পর্কেও জানতে পারবেন।

বাংলাদেশ ,

‘বাংলাদেশের মানুষ বাংলা বলো না কেন?’

আমিমুল হাসান

কোন দেশের মানুষকে পুরোপুরি বুঝতে হলে দরকার সেই মানুষের ভাষা শেখা। তাই এদেশের ইতিহাস ঐতিহ্যকে ভালোবেসে বাংলা ভাষা শিখেছেন বহু ভিনদেশি মানুষ। অনেকে কাজের জন্য আবার অনেকে শুধুই বাংলাদেশের মানুষকে বোঝার জন্য শিখেছেন রফিক, বরকত, আব্দুল জাব্বরদের লড়াই করে ছিনিয়ে আনা বাংলা ভাষা। এমন কয়েকজন বিদেশি, যারা বাংলা শিখেছেন তাদের নিয়েই এই আয়োজন।

 

চিনের নাগরিক জ্যাং জিং। ব্যবসা করছেন বাংলাদেশে। পুরান ঢাকার খাবার, আর মানুষ মুগ্ধ করেছে তাকে। ব্যবসার ফাঁকে ফাঁকে শিখেছেন বাংলা ভাষা। জিং জ্যাং জানান, পুরান ঢাকা থেকেছিলেন তিনি। সেখানকার বিরিয়ানি তার খুবই পছন্দ। বাংলাদেশের মানুষ খুব আন্তরিক বলেও জানান তিনি।

 

 

ইঞ্জিনিয়ার নিহাল ওহেরাগোদা। শ্রীলংকার নাগরিক। বাংলা ভাষার ইতিহাসের প্রতি প্রেম তাকে বাংলা শিখতে অনুপ্রাণিত করেছে। জানেন ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস। ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস নিয়ে তিনি বলেন, ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারি ভাষা আন্দোলন শুরু হয়েছিল। সেই আন্দোলনে অনেক বাংলাদেশি জীবন ও রক্ত দেয়। এসব ঘটনা এখনও অণুপ্রাণিত করে তাকে।

 

 

নব্বই দশক থেকে বাংলাদেশে আসা যাওয়ার মধ্যেই আছেন নেদারল্যান্ডসের নাগরিক কেস ব্লোক। কাজ করছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের একটি প্রকল্পে। সরিষার তেল দিয়ে আলু ভর্তা মুগ্ধ করে তাকে। কেস ব্লোক বলেন, ‘আমার ভর্তা খুব ভালোলাগে। আমার খুব প্রিয় গান- এক সাগরও রক্তের বিনিময়ে… বাংলার স্বাধীনতা আনলো যারা… আমরা তোমাদের ভুলবো না।’

 

 

এইকো কামবে। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর থেকে বসত গড়েছেন বাংলাদেশে। জাপানে থাকতে এখন আর ভাল লাগে না। বাংলাদেশের মানুষ নাকি তার অন্তরের গহীনে জায়গা করে নিয়েছে। এদেশের পোশাক ও খাবার নিয়ে এইকো কামবে বলেন, আমি শাড়ি পছন্দ করি। সবাই বলে শাড়ি পরলে আমাকে সুন্দর লাগে। জাপানি জামা পরলে সুন্দর বলে না। আমার ভালোলাগে ডালভাত খেতে, শান্তি লাগে।

 

 

বাংলাদেশের মানুষ যারা রক্ত দিয়ে বাংলা ভাষার জন্য লড়াই করেছে, সে দেশের মানুষের বাংলার প্রতি অবহেলা অবাক করে এই জাপানের নাগরিককে। তিনি বলেন, ‘আমার সাথে কেউ কথা বললে ইংরেজি বলে। অবশ্যই বিদেশিদের সাথে কথা বললে ইংরেজি বলবে, তবে আমি উত্তর দেই বাংলায়। তবুও আবার ইংরেজিতে বলে। আমি মাঝে মাঝে এসব শুনে রাগ করি। বলি, বাংলাদেশের মানুষ বাংলা বলো না কেন? আমি বকা দেই।’

 

বিদেশীদের মুখে বাংলা শুনে আমরা যতটা আপ্লুত হই তারচেয়ে বেশি লজ্জা লাগে যখন বিদেশী কেউ বলে তুমি এত ইংরেজি বল কেন, বাংলা জানো না? লজ্জা তখন কোথায় রাখি?

 

তুখ/জাআ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LIVE

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশ

আক্রান্ত
২৫৭৬০০
সুস্থ
১৪৮৩৭০
মৃত্যু
৩৩৯৯
সূত্র:আইইডিসিআর

বিশ্ব

আক্রান্ত
১৯৮২৪০৩৯
সুস্থ
১২৭৩২৫৪৬
মৃত্যু
৭২৯৯১০
সূত্র: ওয়ার্ল্ড মিটার
বৈরুত বিস্ফোরণের অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট কী পদার্থ?
এন্ড্রু কিশোরের সেরা ৫ গান
চোখে মুখে মৌমাছি নিয়ে চার ঘণ্টা!
বলিউড, মানসিক চাপ, আত্নহনন