বাংলাদেশ, শীর্ষ খবর

রাজধানীতে ড্যান্ডি আঠায় পথশিশুদের আসক্তি বাড়ছে

বহুল পরিচিত ড্যান্ডি নামের আঠাজাতীয় মাদকে, পথশিশুদের আসক্তি বাড়ছেই। প্রয়োজনীয় পণ্য হওয়ায়, এর অবাধ বিক্রিও বন্ধ করা যাচ্ছে না। শরীরের জন্য মারাত্মকভাবে ক্ষতিকর এই মাদক রোধে, সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা।

রাজধানীর বিমানবন্দর রেল স্টেশনের পাশে, একটি ফাঁকা জায়গায় কয়েকজনের সঙ্গে বসে ঝিমুচ্ছিলো একটি শিশু। বয়স বড়জোর দশ কি এগারো হবে। পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন, বাবা-মা নেই।

এমন অনেক শিশুকেই দেখা যায় রাজধানীজুড়ে, বিভিন্ন স্থানে। সস্তা আর ভয়ঙ্কর এক মাদকের ছোবলে, কঠিন জীবন তাদের।

ওদের আসক্তি- ড্যান্ডি নামে পরিচিত এক আঠাজাতীয় মাদকে। যে আঠা ব্যবহার হয় পায়ের জুতায়, রিকশা-সাইকেলের টিউবে, জোড়া লাগানোর কাজে। এর খোঁজ, অনেক আগেই এসেছে গণমাধ্যমে। জানে প্রশাসন, দেশবাসী- সবাই।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, ঢাকা দক্ষিণের উপপরিচালক মানজারুল ইসলাম জানান, মাদকটি নিয়ন্ত্রণে আসছে না। কারণ, প্রয়োজনীয় এই পণ্য বিক্রি হয় অবাধেই।

এই আঠায় থাকে টলুইন নামের এক গন্ধযুক্ত পদার্থ। পানিতে মিশে যায়, ব্যবহার হয় রং পাতলা করতে। শিল্পকারখানায় যা বহুল ব্যবহৃত এক তরল পদার্থ। শ্বাসের সঙ্গে টলুইন শরীরে প্রবেশ করলে, স্নায়ুতান্ত্রিক সমস্যা দেখা দেয়। যার অনুভূতি হতে পারে এক ধরনের ঘোরের মতো।

বারবার নিলে, হতে পারে আসক্তি। আর এমন ঘটনাই ঘটে চলেছে, আমাদের আশপাশে ছড়িয়ে থাকা পথশিশুদের মাঝে।

ছিন্নমুল সোসাইটি সাধারণ সম্পাদক পনুয়েল ম-ল পলাশ বলেন, ২০১২ সালের এক জরিপ বলছে, সারা দেশে তখন পথশিশুর সংখ্যা ছিলো প্রায় সাড়ে চার লাখ। তিন লাখের বেশি রাজধানীতেই। গত আট বছরে এই সংখ্যা কোথায় গিয়ে ঠেকেছে, তা এখনো অজানা।

রাকা/ফই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LIVE

হেঁচকি ওঠার কারণ ও কমানোর উপায়
মশা তাড়াতে যেসব উপকরণ ব্যবহার করা যায়
গ্রিন টির ভালো-মন্দ
পাহাড়ের ভাষা, সমতলের ভাষা