20 C
Dhaka
শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

কুকুরের মাংস খাওয়া ঠেকাতে দক্ষিণ আফ্রিকায় আইন

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

মাংসের জন্য কুকুর হত্যা এবং বিক্রি নিষিদ্ধ হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকায়। সম্প্রতি দেশটির সংসদ সদস্যরা একটি আইনে সম্মতি দিয়েছেন। ওই আইনটি কার্যকর হবে ২০২৭ সালে। দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষকে কুকুরের মাংস খাওয়া থেকে বিরত রাখতে এ পদক্ষেপ বলে জানানো হয়েছে।

শত শত বছর ধরে দক্ষিণ আফ্রিকার মানুষ কুকুরের মাংস খেয়ে আসছে। কুকুরের সিদ্ধ করা মাংস-দক্ষিণ আফ্রিকায় যার পরিচিত বশিংটাং নামে, একসময় বেশি বয়সী মানুষের প্রিয় খাবার ছিলো। এখন রেস্টুরেন্টগুলোর খাবারের তালিকায় দিনে দিনে জনপ্রিয়তা হারাচ্ছে এ মাংস। তরুণ-তরুণীরা কুকুরের মাংস খেতে খুব একটা আগ্রহীও নয়। নতুন আইনে যদিও কুকুরের মাংস খাওয়াকে বেআইনী ঘোষণা করা হয়নি। একটি জরিপের তথ্য বলছে, ২০২৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার মাত্র ৮ শতাংশ মানুষ কুকুরের মাংস খেয়েছে। ২০১৫ সালে এ সংখ্যা ছিলো ২৭ শতাংশ। কুকুরের মাংস খাওয়ার পক্ষে রয়েছে ৫ ভাগের মাত্র ১ ভাগ মানুষ।

লিচে ইয়েন নামে ২২ বছরের শিক্ষার্থী বলেছেন, প্রাণীদের অধিকার রক্ষায় নিষেধাজ্ঞা জরুরী ছিলো। অনেকেরই গৃহপালিত প্রাণী আছে। দক্ষিণ আফ্রিকার রাজধানী সিউলে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসিকে তিনি বলেন, ‘‘কুকুর আমাদের পরিবারের মতো। পরিবারের সদস্যদের খেয়ে ফেলা ঠিক নয়।’’  

নতুন আইনে মূলত কুকুরের মাংসের বাণিজ্যের ওপর কড়াকড়ি দেওয়া হয়েছে। আইনে বলা হয়েছে, কুকুর হত্যায় জড়িতদের ৩ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড দেওয়া হবে। আরা যারা মাংস সংগ্রহ এবং বিক্রির জন্য কুকুর লালন করবে, তাদের ২ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড দেওয়া হবে। কুকুরের খামারি এবং রেস্টুরেন্ট মালিকদের ২০২৭ সালের মধ্যে ভিন্ন আয়ের ‍উৎস খোঁজার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ২০২৩ সালের সরকারি তথ্য মতে, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১৬শ কুকুরের মাংসের রেস্টুরেন্ট এবং কুকুরের খামার রয়েছে ১১শ ৫০টি। সরকারের পক্ষ থেকে কুকুরের মাংস বিক্রির সঙ্গে জড়িতদের সহযোগিতা করা হবে যেন তারা ব্যবসায়িক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারে।

যদিও সরকারের এ সিদ্ধান্ত নিয়ে আপত্তি রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার কিছু মানুষের। একজন কুকুরের খামারি জানিয়েছেন, ‘‘মানুষ কি খাবে না খাবে সেটা তার ব্যক্তিগত বিষয়। এখানে হস্তক্ষেপ গ্রহণযোগ্য নয়।’’

- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বাধিক পঠিত