আলোচিত, বিচিত্র বিশ্ব

খেলনা দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুর ১৭৬ কোটি টাকা আয়!

অনলাইন মাধ্যম ইউটিউব চ্যানেলে শুধুমাত্র খেলনার ভিভিও দেখিয়ে বছরে ১৭৬ কোটি টাকা আয় করেছে ৭ বছরের ছোট্ট শিশু রায়ান।

 

সম্প্রতি ফোর্বস ম্যাগাজিন ইউটিউব স্টার হিসেবে একটি তালিকা প্রকাশ করেছে, যেখানে ৮ নম্বর থেকে ১ নম্বরে উঠে এসেছে রায়ানের চ্যানেল ‘রায়ান টয়’স রিভিউ’। ইউটিউব  হতে অর্জিত বিশ্বের সর্বোচ্চ উপার্জনকারী তারকা এখন প্রাথমিক স্কুলের এই শিশু। ২০১৭ সালের ১ জুন থেকে ২০১৮ সালের ১ জুন পর্যন্ত ইউটিউব হতে রায়ান আয় করে ২২ মিলিয়িন ডলার বা ১৭৬ কোটি টাকা।

 

 

সর্বপ্রথম ২০১৫ সালের মার্চ মাসে অনেকটা শখ করেই রায়ানের খেলনার উপর রিভিউ দেয়া ভিডিওগুলো প্রকাশ করা হয়। পরে তা দ্রুত ভাইরাল হয়ে যায়। পর্বরতীতে রায়ানের ভক্তদের কথা মাথায় রেখে ২০১৬ সালে ‘রায়ান টয়’স রিভিউ’  নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলা হয়। যেখানে রায়ানের বাবা-মা প্রায় প্রতিদিন রায়ানের নিত্যনতুন ভিডিও প্রকাশ করেন।

 

ফোর্বস ম্যাগাজিনের মতে, রায়ানের চ্যানেলটিতে ১৭ মিলিয়ন ফলোয়ার রয়েছে এবং ২৬ বিলিয়ন মতামত প্রদানকারী প্রদর্শনকারী রয়েছে।

 

 

বিবিসি বলছে, ইন্টারনেটে খুবই পরিচিত হওয়া সত্ত্বেও রায়ানের পরিচয় নিয়ে রয়েছে রহস্য। তার পূর্ণ নাম, রায়ান কোথায় থাকে, কেউ জানে না। রায়ানের বাবা-মা মাত্র অল্প কয়েকবার গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। একটি সাক্ষাৎকারে রায়ানের মা দাবি করেছেন, যখন তার ছেলের বয়স মাত্র তিন বছর, তখন এই ইউটিউব চ্যানেল করার আইডিয়া রায়ানই দিয়েছিল।

 

তবে রায়ানের মা নিজেও তার নিজের পরিচয় প্রকাশ করেননি।

 

ইউটিউবে রায়ানের প্রথম ভিডিওটি ছিল প্লাস্টিকের ডিম ভেঙ্গে সেখান থেকে খেলনা বের করা। আশি কোটি বার এই ভিডিও দেখা হয়েছে।

 

রায়ানের ভিডিওর অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে তার স্বতস্ফূর্ততা। নিত্য নতুন খেলনা নিয়ে সে যেভাবে খেলে, সেটা লোকে পছন্দ করে। একটি রিভিউতে বলা হচ্ছে, ‘রায়ান যেভাবে তার খেলনার প্যাকেট খোলে, তখন সেটি একটি নাটকীয় পরিবেশ তৈরি করে।’

 

ফাআ/তুখ/ফই

Comments are closed.

LIVE
Play
সেন্ট মার্টিন’স-এ পর্যটক নিয়ন্ত্রণ কেন জরুরি
একনজরে মুহাম্মাদ সা.
আমি এখনো আপনার গান শুনছি
ঢাকার ইতিহাস: জীবনদায়ী মিটফোর্ড হাসপাতাল