বাংলাদেশ, শীর্ষ খবর

মৃত্যুর আগে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি চান বোরহান উদ্দিন

স্বাধীনতার ৫০ বছরেও স্বীকৃতি মেলেনি মানিকগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধা বোরহান উদ্দিনের। জীবনে না পাওয়ার অনেক আক্ষেপ তার। বেদনা ভরা জীবনের শেষ প্রান্তে এই প্রবীণ মুক্তিযোদ্ধার আশা ওই স্বীকৃতিটুকু। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবেই যেতে চান জীবনের ওপারে।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কাল রাতে বর্বর পাকিস্থানিরা ঝাপিয়ে পড়ে নিরস্ত্র বাঙ্গালীর উপর। পাল্টা জবাব দিতে বাংলার দামাল ছেলেরা গড়ে তোলে মুক্তিবাহিনী। শুরু হয় স্বাধিনতার সংগ্রাম।

সেই ডাকে সাড়া দেন মানিকগঞ্জের এক কিশোর। তার নাম বোরহান উদ্দিন। এসএসসি পরক্ষার্থী বোরহান মাকে কিছু না বলে পালিয়ে যোগ দেন মুক্তিবাহিনীতে।

প্রশিক্ষণ শেষে যোগ দেন ২নং সেক্টরে। নিজ এলাকা মানিকগঞ্জের ঘিওরে খান সেনাদের বিরুদ্ধে সম্মুখযুদ্ধে অংশ নেন।

১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীন হলো। যুদ্ধ শেষে সংসার চালাতে শুরু হয় নতুন যুদ্ধ। ভালো আয়ের আশায় পারি দেন বিদেশ। সাফল্য না আসায় আবার ফেরেন দেশে। শুরু করেন দর্জির কাজ। সামান্য আয়েই চালাতে থাকেন অভাবের সংসার।

কিন্তু এখন বয়স হয়েছে। চোখে ছানি পড়ে দেখেন না প্রায় কিছুই। আরও নানারোগ বাসা বেধেছে শরীরে। আর কাজ করতে পারেন না এ মুক্তিযোদ্ধা। অর্থের অভাবে চিকিৎসাও করাতে পারছেন না।

স্বাধীনতার ৫০ বছরেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি না মেলার আক্ষেপ তার। বার বার আবেদন করেছেন তিনি। মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়ক আতাউল গনি ওসমানীর স্বাক্ষরিত সনদ আছে তার।

এলাকাবাসী বলছেন, মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার প্রাপ্য স্বীকৃতি তাকে দেয়া উচিত। জীবনের শেষ ভাগে চাওয়া পাওয়া কিছু নেই এই বীর মুক্তিযোদ্ধার। চেয়ে আছেন স্বীকৃতিটুকুর জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LIVE

‘কাঁচা বাদাম’ গান ও একজন ভুবন বাদ্যকার
মা ও স্ত্রীর মধ্যে ভারসাম্য রাখতে চান?
অন্ধদের দৃষ্টি ফেরাবে বায়োনিক চোখ
আপনার ফোনে আড়ি পাতলে কিভাবে বুঝবেন?