30 C
Dhaka
সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০২২

আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের জামিন শুনানিতে বিব্রত হাইকোর্ট

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের সময়ে করা তথ্য-প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের জামিন আবেদনের শুনানিতে বিব্রতবোধ করেছেন হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। এখন নিয়ম অনুসারে মামলাটি প্রধান বিচারপতির কাছে যাবে। এরপর প্রধান বিচারপতি আবেদনটির শুনানির জন্য অন্য আরেকটি বেঞ্চ নির্ধারণ করবেন বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

 

৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ শুনানিতে বিব্রতবোধ করেছেন বলে জানান শহিদুল আলমের আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক।

 

এই দিন আদালতে ড. শাহদীন মালিক ছাড়াও শহিদুল আলমের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার সারা হোসেন আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

 

এ বিষয়ে শাহদীন মালিক জানান, আদালত বিব্রতবোধ করেছেন। এখন নিয়ম অনুসারে আবেদনটি প্রধান বিচারপতির কাছে যাবে। আর তিনি অন্য কোনো বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠাবেন।

 

এদিকে, শহিদুল আলমের সমর্থনে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন, নোয়াম চমস্কি, অরুন্ধতী রায়সহ খ্যাতিমান একাধিক লেখক-বুদ্ধিজীবী বিবৃতি দেন। আর পেন ইন্টারন্যাশনালসহ একাধিক আন্তর্জাতিক সংগঠনও তার পক্ষে বিবৃতি দিয়েছে। এছাড়া সর্বশেষ আলোকচিত্রী শহিদুল আলমকে মুক্তি দিতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ব্রিটিশ এমপি টিউলিপ সিদ্দিক।

 

উল্লেখ্য, গেল ৫ আগস্ট রাতে ধানমণ্ডির বাসা থেকে ডিবি পরিচয়ে একদল লোক শহিদুলকে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন তার স্ত্রী রেহনুমা আহমেদ। পরে তাকে রমনা থানার মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এছাড়া ৬ আগস্ট শহিদুল আলমকে আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদন করলে সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

 

এ মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, দৃক গ্যালারির প্রতিষ্ঠাতা ড. শহিদুল আলম নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলমান ছাত্র বিক্ষোভ নিয়ে সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন। আর ওই সাক্ষাৎকারে মিথ্যা তথ্য দিয়ে রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করা হয়েছে।

ফাই//মাও
- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত