29 C
Dhaka
বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২

মানবাধিকার পরিস্থিতি: ‘সমাধানের পথ দেখানো হয়েছে’

বিশেষ সংবাদ

Juboraj Faishal
Juboraj Faishalhttps://www.nagorik.com
Juboraj Faishal is a News Room Editor of Nagorik TV.
- Advertisement -

দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘ যেসব সুপারিশ করেছে, তা গুরুত্বের সঙ্গে দেখার তাগিদ দিচ্ছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, সংকট চিহ্নিত, সমাধানের পথও দেখানো হয়েছে। এখন, জনগণের আস্থা ফিরিয়ে আনাই বড় চ্যালেঞ্জ।

চার দিনের লম্বা সফরে ঢাকায় আসেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থার প্রধান মিশেল ব্যাচেলেট। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ কথা বলেছেন বেশকজন মন্ত্রীর সঙ্গে। শুনেছেন বিএনপির মতামত। দেখা করেছেন মানবাধিকার বিষয়ক বেসরকারি অংশীজনেরাও।

শেষদিনে আসেন সংবাদ সম্মেলনে। ঢাকা ছাড়ার আগে ব্যাচেলেট জানিয়ে যান, বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি কেমন, সংকটগুলো কী? এবং এ থেকে উত্তরণের উপায়ই-বা কী! (গ্রাফিক্স)

তার চলে যাওয়ার পরদিন সকালে, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থার প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করে আওয়ামী লীগ। দলটির নেতাদের দাবি, মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি রাজনৈতিক অপপ্রচারের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এ বিষয়ে জাতিসংঘ প্রতিনিধিদের বোঝানোর চেষ্টা হয়েছে।

এমন অবস্থায় বিশ্লেষকরা বলছেন, সরকারের মধ্যে যে এক ধরনের অস্বস্তি আছে, তা কিছুটা হলেও আঁচ করা যায়।

মিশেল ব্যাচেলেট যেসব অংশীজনদের মতামত শুনেছেন, তাদের একজন, আইনজীবী রেজওয়ানা হাসান। তিনি বলেন, রাষ্ট্র পরিচালনার সব প্রতিষ্ঠানেই সুশাসন নিশ্চিত করাই মানবাধিকার।

মিশেল ব্যাচেলেটের সফরে যেকজন মন্ত্রী কথা বলেছেন, সবাই গুমের বিষয়গুলো অস্বীকার করেছেন। তাহলে স্বাধীন তদন্ত সংস্থা গঠন কিংবা সংলাপের আহবান আদৌ কী কোনো কাজে আসবে?

এই দুই বিশ্লেষক মনে করেন, গুম খুনের অভিযোগ, নিষেধাজ্ঞা- সব মিলিয়ে দেশের ভাবমুর্তির একটা সংকট রয়েছে। তাই, ব্যাচেলেটের সুপারিশমালা গুরুত্ব দিয়ে দেখে, সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী হওয়ার তাগিদ তাদের।

আব্দুল্লাহ শাফী/ফই

- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত