26 C
Dhaka
শনিবার, নভেম্বর ২৬, ২০২২

৭৬তম জন্মদিন: শেখ হাসিনা মানেই সমৃদ্ধ এক বাংলাদেশ

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

শেখ হাসিনা মানেই সমৃদ্ধ এক বাংলাদেশ। পঁচাত্তর পরবর্তী স্বাধীন বাংলাদেশের, সবচেয়ে সফল রাষ্ট্রনায়ক তিনি। যার নেতৃত্বে, বিশ্বের দরবারে আলাদা করে জায়গা করে নিয়েছে লাল সবুজের পতাকা। প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ।

এ বয়সেও নিয়ম করেই ভোরবেলা ঘুম থেকে ওঠেন। নামাজ পড়েন। নিজেই চা বানিয়ে খান। হাজার ব্যস্ততার মাঝেও হাতে কিছুটা সময় পেলেই রান্না করেন। কখনো-বা মাছ ধরেন বড়শি দিয়ে।

এখনো সময় পেলে সেলাই মেশিনে নিজের পোশাক সেলাইও করেন তিনি। নাতি-নাতনিদের সঙ্গে খেলাধূলা, সময় কাটান একান্তই পারিবারিক পরিবেশে। সহজ-সরল জীবনেই স্বচ্ছন্দ, বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ক্ষমতার উঁছু আসনে থেকেও তিনি, সাদামাটা একজন মানুষ।

১৯৪৭ সালের দেশভাগের উত্তাল দিনগুলোতে, রাজরোষ আর জেল-জুলুম তখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিত্য সহচর। সেই সময়ের একদিন, ২৮ সেপ্টেম্বর। মা ফজিলাতুন্নেছার কোল আলো করে জন্ম নেন, শেখ হাসিনা। বেড়ে ওঠেন দাদা-দাদির কোলে-পিঠে। বাঙালির মুক্তি আন্দোলনে ব্যস্ত পিতার দেখা পেতেন কদাচিৎ। পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে ছিলেন জ্যেষ্ঠ সন্তান।

শিক্ষাজীবন শুরু টুঙ্গিপাড়ার এক পাঠশালায়। ১৯৫৪ সালে ঢাকায় আসেন, ৫৬ সালে ভর্তি হন টিকাটুলির নারীশিক্ষা মন্দির বালিকা বিদ্যালয়ে। ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের ঐতিহাসিক বাড়িতে বসবাস শুরু ৬১-তে। ৬৫ সালে আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৬৭ সালে উচ্চমাধ্যমিক। তখনই জড়িয়ে পড়েন রাজনীতিতে। নির্বাচিত হন ছাত্র সংসদের ভিপি পদে। অংশ নেন ছয় দফা আন্দোলন ও গণ-অভ্যুত্থানে।

৭৫-এর নারকীয় হত্যাযজ্ঞের পর, ৮১ সালে দেশে ফেরেন। দীর্ঘ ২১ বছর সংগ্রাম শেষে, ক্ষমতায় বসেন ১৯৯৬ সালে। এরপর ২০০৯ থেকে অধ্যাবধি, প্রতিনিয়ত যুক্ত হচ্ছে সফলতার পালক। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি থেকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে মহাকাশ জয়, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, টানেল কিংবা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, সবকিছুতেই প্রতিনিয়ত রেকর্ড।

করোনা মহামারির অভিঘাতে ভ্যাকিসন নিশ্চিতে কূটনৈতিক দূরদর্শিতা আর অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তার উদ্যোগ বিশ্ব অর্থনীতিতে এখন রোল মডেল।

সুরক্ষা এবং সবার জন্য শান্তি ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করায়, পেয়েছেন অসংখ্য পুরস্কার ও স্বীকৃতি। সম্প্রতি, জাতিসংঘে এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কারের সঙ্গে ‘ক্রাউন জুয়েল’বা ‘মুকুট মণি’অভিধায় ভূষিত হন।

চার দশকের দল পরিচালনা আর ১৯ বছরের শাসনামল। দল ও দেশকে যে স্বপ্ন দেখিয়েছেন, তাতে হয়ে উঠেছেন, প্রগতি-উন্নয়ন, শান্তি ও সমৃদ্ধির সুনির্মল মোহনা, শেখ হাসিনা।

- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত