31 C
Dhaka
রবিবার, মে ২২, ২০২২

সোনালী ব্যাংকে অলস টাকার পাহাড়, খেলাপি ১০ হাজার কোটি টাকা

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

একশো টাকা ঋণ দিয়ে এখন ব্যাংক সুদ পায় ৯ টাকা। অথচ আসলের ১৫ টাকার কাছাকাছি ভল্টে ফেরে না। যেন পিপড়ায় খায়, লাভের গুড়। কেবল তাই নয়, একশো টাকা আমানত এনে, অলস পড়ে থাকছে ৫৩ টাকাই। মোট পরিমাণ, ৬৫ হাজার কোটি টাকা। এই চিত্র, সরকারি সোনালী ব্যাংকের। ব্যাংকটির প্রায় দশ হাজার কোটি টাকা খেলাপির পেটে।

গ্রাহকের আমানত নিয়েই গ্রাহককে ঋণ দেয় ব্যাংক। সে মুনাফা থেকে আমানতকারীকে দিতে হয়, জমা টাকার জন্য সুদ। তাই, আমানত, অলস ফেলে রাখার চিন্তাও করা যায় না। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সায়, একশো টাকায় ৯০ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগে। ব্যাংকগুলো চায়, যত বেশি আমানত, ততবেশি ঋণ দিতে।

তবে সরকারি খাতের সোনালী ব্যাংকের চাপ নেই। প্রতি একশো টাকায় সোনালী ব্যাংকের বিনিয়োগ মাত্র ৪৭ টাকা। অলস পড়ে আছে প্রায় ৬৫ হাজার কোটি টাকা ।

হিসাব বলছে, ১ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা গ্রাহক জমা রেখেছে বিশ্বাস করে। এসব গ্রাহককে দিন গেলেই দিতে হয় সুদ। অথচ, এখান থেকে থেকে বিনিয়োগ ৬৯ হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি। অথচ, অলস অর্থ বিনিয়োগ করলে, বাড়বে আয়। তবে সেখানেও বড় ঝুঁকি। হলমার্কের ক্ষত যে টানতে হচ্ছে।

অবশ্য, বিদায়ি বছরে বড় মুনাফায় সরকারি খাতের সবচেয়ে বড় ব্যাংকটি। দু হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। তবে খেলাপি ঋণের খাতায় বড়, পরিমাণ ১০ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি।

সুশাসন, খেলাপি ঋণ আর তথ্য প্রযুক্তিতে তাই মনোযোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের। মন্দ ঋণ নামাতে চান, এক অংকে, সর্তকতা নতুন ঋণ বিতরণে।

নথিপত্র বলছে, ব্যাংকটি শীর্ষ ২০ খেলাপির কাছেই পাওনা ৪ হাজার কোটি টাকার বেশি। যা থেকে সাড়ে ৪ দশকে আদায় ৩শ কোটি টাকারও কম। মুখে, এসএমইর কথা বললেও, যা লক্ষ্য রাখে, তার অর্ধেক হয় বিতরণ এ খাতে।

তবে সোনালী ব্যাংকের সোনালী দিন ফিরতে হয়তো, অর্থনীতিতে অবদান বাড়বে, প্রত্যাশা আমানতকারীদের।

- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত