29 C
Dhaka
বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১১, ২০২২

মসজিদভিত্তিক গণশিক্ষার পাঠ্যক্রম কী সঙ্গতিপূর্ণ?

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

দেশে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্পে যে পাঠ্যসূচি রয়েছে, তার কি যথাযথ অনুমোদন আছে? জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড মনে করে, আলাদা এই কারিকুলাম, জাতীয় ভাবধারার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা অবশ্য বলছেন, পাঠ্যসূচি যাই হোক, উদ্দেশ্য একই।

দেশে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্য একটি পাঠ্যসূচি তৈরি করেছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড-এনসিটিবি। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ওই কারিকুলাম অনুযায়ী শিক্ষা দেয়ার কথা। কিন্তু সরকারের সেই নির্দেশনা মাঠ পর্যায়ে কতোটা বাস্তবায়িত হচ্ছে?

রাজধানীর দক্ষিণখানের খলিল বক্স জামে মসজিদ। এখানে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্পের একটি প্রাক-প্রাথমিক কেন্দ্র। দূর থেকেই শোনা যাচ্ছিল বাচ্চাদের পড়ানোর শব্দ।

এখানকার শিক্ষার্থীরা যে ঢংয়ে, যে বই পড়ছে, তার সাথে মিল নেই প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কারিকুলামের।

এবার দেখতে চাই, পাশের কেন্দ্রে কিভাবে, কোন বই পড়ানো হচ্ছে?

মূলত এই বই, শিখন পদ্ধতি ইসলামিক ফাউন্ডেশনের তৈরি। প্রায় তিন দশক ধরে পড়ানো হচ্ছে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্পের প্রায় ২৯ হাজার কেন্দ্রে। এই কারিকুলাম কতোটা গ্রহণযোগ্য?

অধ্যাপক ড. এ কে এম রিয়াজুল হাসান, সদস্য, প্রাথমিক শিক্ষাক্রম, বলছেন, আলাদা কারিকুলাম জাতীয় ভাবধারা রক্ষার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হচ্ছে না।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আলাদা কারিকুলাম হলেও, উদ্দেশ্য একই।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন ছাড়াও হিন্দু ও বৌদ্ধ কল্যাণ ট্র্যাস্ট এবং শিশু একাডেমিও নিজস্ব কারিকুলামে প্রাক-প্রাথমিকে পাঠদান করছে। যার সঙ্গে মূল কারিকুলামের অনেক পার্থক্য। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের হিসেবে, প্রধানত তিন শ্রেণির এক লাখের বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বর্তমানে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা দিচ্ছে। তাদের তালিকায় শিশু একাডেমি ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো নেই।

- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত