29 C
Dhaka
বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২৩

বুলেটপ্রুফ ট্রেনে চেপে রাশিয়ায় উ. কোরিয়ার নেতা

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

পুতিনের সঙ্গে দেখা করতে, বুলেটপ্রুফ ট্রেনে চেপে রাশিয়া গেলেন, উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। কানাঘুষা রয়েছে, রাশিয়ার কাছে অস্ত্র বিক্রি করতে চান তিনি। তেমনটা হলে, কড়া জবাব। হুঁশিয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের। তবে, সব ছাপিয়ে আলোচনা, কিমের বিলাসবহুল ট্রেন নিয়ে।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের আমন্ত্রণে রাশিয়া পৌঁছেছেন, উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। তাকে স্বাগত জানিয়েছেন পুতিন নিজেই। ইউক্রেন যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে রাশিয়ার সঙ্গে অস্ত্র চুক্তি নিয়ে ওয়াশিংটনের সতর্কতার মধ্যেই কিম এ সফর করছেন।

কিম রাশিয়ায় গেছেন ট্রেনে চড়ে। ধীরগতির বুলেটপ্রুফ ট্রেনটি ২০ ঘণ্টায় ১ হাজার ১৮০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে রাশিয়ায় পৌঁছেছে। অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকায় ট্রেনটি ঘণ্টায় মাত্র ৫০ কিলোমিটার বেগে ছুঁটতে পারে।

শুধু কঠোর নিরাপত্তাবেষ্টনি নয়, ট্রেনটিতে রয়েছে আরও অনেক সুযোগ-সুবিধা। এতে একটি আন্তর্জাতিক মানের রেস্টুরেন্ট রয়েছে। যেখানে পাওয়া যায় ফরাসি ওয়াইন ও উন্নতমানের গলদা চিংড়ির মতো খাবার। ট্রেনের ভেতর রাশিয়ান, চাইনিজ, কোরিয়ান, জাপানিজ এবং ফরাসি খাবার অর্ডার দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।

রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের ব্যক্তিগত ট্রেনেও এসব সুযোগ-সুবিধা নেই যা এই ট্রেনে আছে। ট্রেনের যাত্রীদের বিনোদনের জন্য সঙ্গীত শিল্পীসহ আরও অনেক ব্যবস্থা রয়েছে।

এই ট্রেনটিতে ৯০টির মতো বগি আছে। সবুজ রঙ ও হলুদ রঙের ডোরা কাটা এই ট্রেনটির ভেতর কনফারেন্স রুম, অডিয়েন্স চেম্মার এবং বেডরুম রয়েছে। এছাড়া এতে স্যাটেলাইট ফোন এবং বড় আকারের টেলিভিশনের পর্দাও আছে।

উত্তর কোরিয়ার বর্তমান নেতা কিম জং উনের দাদা কিম ইল সুংয়ের সময় এই ট্রেনের যাত্রা শুরু হয়। তিনি ট্রেনটিতে করে ভিয়েতনাম এবং পূর্ব ইউরোপের দেশগুলোতে গিয়েছিলেন। এই ট্রেনগুলোকে নিরাপত্তা দিয়ে থাকে ভারী অস্ত্রবাহী সেনারা। নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এসব সেনা লাইন পরীক্ষা করা এবং পরবর্তী স্টেশনে কোনো ধরনের বোমা হামলার ঝুঁকি আছে কি না, সেদিকে নজর রাখেন।

কিম জং উনের বাবা কিম জং ইল ১৯৯৪ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত উত্তর কোরিয়াকে শাসন করেন। সে সময় ধারণা ছিল, কিমের বাবা প্লেনে উঠতে ভয় পেতেন। তাই তিনি ট্রেনে করেই বেশি যাতায়াত করতেন। ২০১১ সালে এই ট্রেনের ভেতরই হার্টঅ্যাটাক করে মারা গিয়েছিলেন কিম জং ইল।

এদিকে কিম জং উন সবশেষ পুতিনের সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাত করেছিলেন ২০১৯ সালে। সেবার তিনি ট্রেনে চেপে গিয়েছিলেন রাশিয়ার সূদুর পূর্বাঞ্চলের ভ্লাদিভসতকে। এবার তাকে বহনকারী ট্রেনটি উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ংইয়ং থেকে ছেড়েছে। এরপর এটি তুমাংগ্যাং স্টেশন হয়ে রাশিয়ার সীমান্তে গেছে। সেখান থেকে রাশিয়ান লাইনে ওঠে ট্রেনটি। উত্তর কোরিয়ার লাইন থেকে রাশিয়ার লাইনে প্রবেশ করতে ট্রেনটির কয়েক ঘণ্টা সময় লাগে। কারণ, দুদেশের রেললাইনের ধরন আলাদা হওয়ায়, বদলে ফেলতে হয় ট্রেনের চাকা।

রাশিয়া সফরে কিম জং–উনের সঙ্গে তাঁর দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আছেন। আছেন দেশটির সামরিক কর্মকর্তারা। এছাড়া উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ অস্ত্রশিল্পের কর্মকর্তারাও তাঁর সঙ্গে আছেন।

- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বাধিক পঠিত