30 C
Dhaka
মঙ্গলবার, আগস্ট ১৬, ২০২২

মন্দিরে নারীর প্রবেশ নিয়ে সহিংসতা, অচল কেরালা

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

শবরীমালা মন্দিরে নারীর প্রবেশ নিয়ে সহিংস বিক্ষোভে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের প্রদেশ কেরালা কার্যত অচল হয়ে পড়েছে। বুধবারের সহিংসতায় সেখানে একজন নিহত হয়েছেন। বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ভেঙে পড়েছে গণপরিবহন ব্যবস্থা।

 

কেরালার সুপরিচিত মন্দির শবরীমালায় প্রাপ্তবয়স্ক নারীদের প্রবেশ ঐতিহাসিকভাবে নিষিদ্ধ। এ নিষেধাজ্ঞা গত সেপ্টেম্বরে সুপ্রিম কোর্ট বাতিল ঘোষণা করে মন্দিরটিতে প্রাপ্তবয়স্ক নারীদের উপাসনা বাধাহীন করে। তখন থেকেই রাজ্যটিতে ডানপন্থিদের বিক্ষোভ দানা বাঁধতে থাকে।

 

সর্বোচ্চ আদালতের রুল জারির পর থেকে নারীরা মন্দিরটিতে প্রবেশ করতে চাইলেও বিক্ষোভের মুখে তাদের সরে আসতে হয়েছে এতদিন। তবে গত বুধবার বিন্দু আম্মিনি (৪০) ও কনক দুর্গা (৩৯) নামের দুই নারী প্রথমবারের মতো মন্দিরটিতে প্রবেশ করেন। এ ঘটনায় রাজ্যটির কট্টর ডানপন্থি ধর্মীয় সংগঠনগুলো বিক্ষোভে ফেটে পড়ে এবং রাজ্য অচল করে দেয়।

 

এ ঘটনায় রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষও হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেছে পুলিশ। সংঘর্ষে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

 

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম থেকে জানা গেছে, পুলিশ কেরালার একটি জেলার বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রায় ১০০ জনকে গ্রেফতার করেছে। সেখানে একজন নারী পুলিশ কর্মকর্তার ওপর হামলা চালানো হয়েছিল।

 

কেরালার রাজধানী থিরুভাথাপূরমে বিক্ষোভ থেকে সংবাদকর্মীদের ওপর হামলা চালানোর খবরও পাওয়া গেছে।

 

গত ডিসেম্বরেও বিন্দু ও কনক শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশের চেষ্টা করেন। তখন বিক্ষোভকারীদের বাধার মুখে তারা ব্যর্থ হন। বিক্ষোভকারীদের বক্তব্য শবরীমালা মন্দিরে প্রাপ্তবয়ষ্ক নারীর প্রবেশ এ মন্দিরের অধিষ্ঠাতা স্বামী আয়াপ্পার ইচ্ছার বিরুদ্ধে যায়।

 

ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) সুপ্রিম কোর্টের ওই রুল জারিকে হিন্দু মূল্যবোধের ওপর আঘাত বলে মনে করছে। দলটির এমন অবস্থানের কারণে সমালোচনায় পড়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সমালোচকরা বলছেন, বিজেপির হিন্দু সমর্থকদের অন্যতম ঘাঁটি কেরালার এ ইস্যুকে ঘিরে ভোটের রাজনীতি করছেন। আগামী এপ্রিল ও মে মাসে ভারতে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

 

হিন্দুধর্মে প্রাপ্তবয়ষ্ক নারীদেরকে ধর্মীয় উপাসনাকাজে অংশ নেয়ার ক্ষেত্রে অপবিত্র বলে বিবেচনা করা হয়। তবে বর্তমানে ঋতু চলাকালীন ছাড়া নারীরা অধিকাংশ মন্দিরেই প্রবেশ করতে পারেন। শবরীমালা মন্দিরকে ঘিরে প্রচলিত কাহিনী থেকে জানা যায়, স্বামী আয়াপ্পা একজন চিরকুমার ছিলেন। তাই তার মন্দিরে ১০ থেকে ৫০ বছর বয়সী নারীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ।

 

মাহা/শাই/মাও
- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত