ফিচার ,

প্রাণ দিয়ে হাতিরা দিলো দায়িত্বশীলতার শিক্ষা!

জলপ্রপাতে পড়ে যাওয়া একটি বাচ্চা হাতিকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেলো আরও ছয়টি হাতি। থাইল্যান্ডের খাও ইয়াই ন্যাশনাল পার্কে শনিবার ঘটেছে এই মর্মান্তিক ঘটনা। তবে ওই ঘটনায় বেঁচে গেছে দু’টি হাতি।

একই জলপ্রপাতে হাতি মারা যাওয়ার ঘটনা এর আগেও ঘটেছে। ১৯৯২ সালে এই হেল’স ফল জলপ্রপাতে পরে মারা যায় আটটি হাতি।

শনিবার দুপুর তিনটার দিকে একদল হাতির সড়ক অবরোধ দেখে কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। সেখানে গিয়ে তারা দেখতে পান মৃত বাচ্চা হাতিটির কাছেই আরও পাঁচটি মরদেহ পড়ে রয়েছে। আর দুটি হাতি ঝর্ণার কিনারায় আটকে ছিল। কর্মকর্তারা ওই দিকে উদ্ধার করেন। তারা জানান, মূলত ছোট হাতিটিকে বাঁচাতে গিয়েই একে একে প্রাণ হারিয়েছে আরো পাঁচটি বড় হাতির।

থাইল্যান্ডে প্রায় সাত হাজার হাতি রয়েছে, যার মধ্যে অর্ধেকেরই বেশি বন্দী। এসব হাতি চরম নির্যাতনেরও শিকার। পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে ব্যবহৃত হয় হাতি। প্রশিক্ষণের জন্য বাচ্চা হাতিগুলোকে মায়ের কাছ থেকে আলাদা রাখা হয়। আর মা হাতি যদি বাচ্চাকে বাঁচাতে বেশি ঝামেলা করে তবে তাকে মেরে ফেলতেও কার্পণ্য করেনা এসব হাতির প্রশিক্ষকেরা। নিষ্ঠুর সব প্রশিক্ষণের পর তাদের তৈরি করা হয় পর্যটকদের মনোরঞ্জনে। ফলাফল, হাতির পিঠে চড়ে চড়ে নদী পার হওয়া যায়, জঙ্গল ভ্রমণ করা যায়, সেলফি তোলা যায় – আরো কত কি।

বিস্ময়কর হলেও সত্যি, একটি বাচ্চা হাতিকে বাঁচাতে ছয়টি হাতি প্রাণ দিয়েছে। ঘটনাটি যেন নীরবে আমাদের নৈতিকতার শিক্ষা দিয়ে গেলো। শিক্ষা দিয়ে গেলো দায়িত্বশীলতার।

LIVE
Play
গাণিতিকভাবে সবচেয়ে নিখুঁত সুন্দরী বেলা হাদিদ!
স্পেনের জানা-অজানা
টিকটকের মধুবালা
ফোর্বসের তালিকায় ২০১৯ সালে ভারতের শীর্ষ ধনী