27 C
Dhaka
শুক্রবার, আগস্ট ১২, ২০২২

এটাই শেষ পর্ব

বিশেষ সংবাদ

- Advertisement -

পাখির ডানায় ভর করে চলে গেলো একটা মাস, শেষ হয়ে গেলো এবারের বিশ্বকাপ। অনেকেরই মতে এবারের আয়োজন ছিল অন্যতম সেরা, কারো কারো মতে রাশিয়ার বিশ্বকাপই ছিল শ্রেষ্ঠ। আয়োজনে কোন ত্রুটি রাখেনি রাশিয়া। বিভিন্ন দেশ থেকে যারা খেলা দেখতে এসেছিলেন, তারাও মুগ্ধ হয়ে ফিরেছেন। কেটে গেছে রাশিয়া সম্পর্কে নানা ধরণের মিথ। সেই পুরোনো সোভিয়েত ইউনিয়নের আমলের রাশিয়া নয়, বর্তমান রাশিয়া হল পর্যটকবান্ধব আনন্দময় এক দেশ। বিশ্বকাপে আগত অতিথি পর্যটক-দর্শকদের জন্য যেন সব আয়োজনই সাজিয়ে রেখেছিল রাশিয়া। খেলাশেষে সবাই তৃপ্তি নিয়ে ফিরে গেছে নিজ নিজ দেশে। আয়োজক দেশ হিসেবে রাশিয়া তাই সম্পূর্ণ সফল।

 

বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলাটি তুমুল উত্তেজনাপূর্ণ না হলেও ছড়াছড়ি ছিল গোলের। ছিল আত্মঘাতি গোল, ফিল্ড গোল, পেনাল্টি গোল এমনকি গিফট গোল। ক্রোয়াটদের পায়ে বল বেশী থাকলেও ফ্রেন্সদের আক্রমন ছিল অনেক ধারালো- ফলশ্রুতিতে ৪-২ গোলে ফ্রান্স জিতেছে। দ্বিতীয়বারের মত ফুটবল বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ফ্রান্স আর প্রথমবারের মত ফাইনালে উঠি রানার্সআপ হলো ক্রোয়েশিয়া।

 

খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণের সময় বৃষ্টি নেমেছে, ভিজিয়ে দিয়েছে খেলোয়াড়, অতিথি এবং দর্শকদের। একটি সফল আয়োজনশেষে এ যেন ছিল স্বস্তির এক বৃষ্টি।

 

এবারের বিশ্বকাপে আলোচনার শীর্ষে ছিলেন ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট কলিন্দা গ্রেভার কিতোরোভিচ। পুরো বিশ্বকাপের সময়টা জুড়ে দলের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়েছিলেন তিনি। কখনো গ্যালারিতে ক্রোয়াট সমর্থকদের সাথে বসে, কখনো বা খেলোয়াড়দের রুমে গিয়ে সবার সাথে আলিঙ্গন করে নিরন্তর উৎসাগ যুগিয়ে গেছেন। শুধু ক্রোয়াটদেরই নয়, একজন আন্তরিক রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে সমগ্র বিশ্বের ফুটবল দর্শকদের মন জিতে নিয়েছেন তিনি।

 

নাগরিক টেলিভিশনের জন্য বিশ্বকাপ রঙ্গ লিখতে গিয়ে এ কদিনে মোটামুটি একজন ফুটবল বোদ্ধা বনে গিয়েছি। আমার ভবিষ্যদ্বানীগুলো ভালই মিলেছে। বলেছিলাম ফাইনালে ফ্রান্স জিতবে, জিতেছে। অনুমান করেছিলাম শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় হয়ে গোল্ডেন বল পুরস্কারটি জিতবে ক্রোয়েশিয়া দলের অধিনায়ক লুকা মদরিচ, আমার অনুমান সঠিক হয়েছে। শুধুমাত্র খেলার নৈপূন্যের কারণেই নয়, তার ফুটবলার হয়ে ওঠার গল্পটি জানার পর থেকেই আমি তার বিশাল ভক্ত বনে গেছি।

 

লুকা মদরিচের শৈশব কেটেছিল যুদ্ধের ভেতরে, ক্রোয়েশিয়া তখন যুগোস্লাভিয়ার বিরূদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। বাবা যুদ্ধে গেছেন, চোখের সামনে খুন হয়েছেন দাদা। শরণার্থী শিবিরে রূপ নেওয়া কোলোভারে নামের এক হোটেলে কেটেছে জীবনের সাতটি বছর। হোটেলের লবি আর পার্কিংয়েই তার ফুটবলের শুরু, সেখান থেকে যুদ্ধ শেষে এক হোটেলকর্মীর সহায়তায় ভর্তি হলেন স্থানীয় ফুটবল একাডেমিতে। তারপর চললো দীর্ঘ সংগ্রাম, পরিণতিতে ক্রোয়েশিয়া দলের আজকের অধিনায়ক। সমগ্র দলের জন্যই এক অনুপ্রেরণা ছিলেন অধিনায়ক মদরিচ।

 

যে কোন বিশ্বকাপের অন্যতম আকর্ষণ থাকে গ্যালারি, এবারেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। নানা দেশের দর্শকরা সেজেগুজে এসে নেচে-গেয়ে প্রতিদিন গ্যালারি মাতিয়ে তুলেছে। সমর্থিত দলের জয়ে আনন্দ এবং পরাজয়ে বিষাদ ছিল গ্যালারিতে নিত্যকার দৃশ্য। ফটোসাংবাদিকদের ক্যামেরার লেন্স প্রতিদিন খুঁজে নিয়েছে আকর্ষণীয় মুখগুলো, মিডিয়ার মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছে সারাবিশ্বের পাঠকের কাছে। মাঠের বাইরেও দর্শকরা মেতেছিল হৈ-হুল্লোড়ে।

 

রাশিয়ার আয়োজন শেষ, চার বছর পরে আবার ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজন বসবে কাতারে। বিশ্ব আবার ভাসবে ফুটবল জোয়ারে, দর্শক মেতে উঠবে আনন্দোৎসবে। এখন অপেক্ষা ফের চার বছরের। এবারের মত বিশ্বকাপ রঙ্গের এটাই শেষ পর্ব। নাগরিক টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ এবং পাঠকদের অসংখ্য ধন্যবাদ। জীবন আনন্দময় হয়ে উঠুক, সবার জন্য শুভ কামনা। চিয়ার্স!

//মাও
- Advertisement -
- Advertisement -

আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত