ফিচার, ফিচার ও

সম্পর্কের যে ৫ বিষয় গোপন রাখবেন

পেটে কথা হজম হয়না এমন অভিযোগ নারীদের বিরুদ্ধেই বেশি থাকে। তবে এক্ষেত্রে শুধু নারীদের দায়ী করা ঠিক নয়। কারণ এদিকে পুরুষরাও পিছিয়ে নেই।

পুরুষদের আড্ডা, গল্পেও নানা ধরনের গোপনীয়তা ফাঁস হয়ে যায়। বিশেষ করে সম্পর্কের বিষয়ে তো তারা ভীষণ পেট পাতলা।

গোপন কোনো বিষয় নিয়ে কারও সঙ্গে আলোচনা করলেই তার সমাধান পাওয়া যায়না। বেশিরভাগ মানুষই আপনার গোপন বিষয়টাকে নিয়ে মজায় মেতে উঠবে।

পুরুষ কিংবা নারী যেই হোক, সম্পর্কের বিষয়-আশয় গোপন রাখতে না পারলে সমসা বাড়তে থাকবে। তাই মানসিকভাবে হালকা লাগতে পারে ভেবে অন্যকে গোপন কথা বলার আগে একটু ভাবুন। 

সম্পর্ক মানে দু’জন মানুষের ভেতর সুন্দর বোঝাপড়া। সম্পর্কে রাগ, ঝগড়া কিংবা অভিমান থাকা অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু ছোট ছোট অনেক বিষয় গড়াতে পারে বড় কোনো সমস্যায়।

সম্পর্ক সুন্দর রাখতে চাইলে যেমন তার যত্ন নিতে হবে, আবার ঠিক তেমনি যেকোনো কথা নিজের সঙ্গীকেও বলা যাবেনা।

এছাড়া, সম্পর্কে তৃতীয় কোন ব্যক্তি নিয়ে আসার মতো ভুল তো করবেনই না। বরং দু’জনের ভালোর স্বার্থেই কিছু বিষয় গোপন রাখতে হবে। নিজেদের মধ্যে রাখতে হবে কিছু কথা।

জেনে নিন কোন পাঁচটি বিষয় গোপন রাখবেন

সঙ্গীর খুঁত ধরা

নশ্বর এ পৃথিবীতে কোনো মানুষই নিখুঁত নয়। প্রত্যেকেরই কিছু দোষ-গুণ থাকে, থাকবে। এটাই স্বাভাবিক। তাই আপনার সঙ্গীর কোনো খুঁত থাকলে সেটা নিয়ে মজার করবেন না, সবাইকে বলে বেড়াবেন না।

কারণ আপনার সঙ্গীকে যদি আপনি সত্যিকার অর্থেই ভালোবেসে থাকেন তবে তার সম্মান রক্ষা করাটা আপনার গুরুদায়িত্ব।

আপনি যদি সঙ্গীর সম্মানটাই রাখতে না পারেন তবে বাকি জীবন আগলে রাখবেন কিসের ভিত্তিতে? আদৌ কি আপনি তাকে ভালোবাসেন? যদি সঙ্গীর সম্মানের হেফাজতটাই না করতে পারেন তাহলে কিসের ভালোবাসেন!

একসময় দেখবেন আপনি যাদের বিশ্বাস করে সঙ্গীর কথাগুলো বলে দিয়েছেন, তারাই আপনার অবর্তমানে আপনার সঙ্গীকে নিয়ে হাসাহাসি করছে, অপমান করছে। এটাই বাস্তবতা। এতে আপনাদের দুজনেরই সম্মান নষ্ট হবে। নাকি এতে আপনার সম্মান কিছুটা বাড়লো? নাকি বাড়লো আপনার গৌরব?

পারিবারিক অশান্তি ও সমস্যাঃ

পারিবারিক অশান্তি কিংবা সমস্যা সংক্রান্ত বিষয়গুলো স্পর্শকাতর বিষয়। সম্পর্কে ঝগড়া, মনোমালিন্য, রাগ, অভিমান এগুলো থাকবেই। নিজেদের মধ্যে কথা বলে সেগুলো মিটমাট করে ফেলবেন। অযথা ব্যক্তিগত ব্যাপার জনে জনে বিলি করবেন না। বাইরের মানুষ আপনার পারিবারিক সমস্যা বিচার করার কেউ নন। 

ভীষণ গোপন কোনো কথাঃ

সব মানুষেরই কিছু না কিছু গোপন কথা থাকে, যা কেবল সঙ্গীই জানেন। হতে পারে তা খুবই ছোট্ট কোনো বিষয়। কিন্তু যত ছোট বিষয়ই হোক, মোটেই গুরুত্বহীন ভাববেন না। সবাইকে সে কথা বলবেন না। আপনার যে বন্ধু বা বান্ধবী সেই বিষয়ে অল্প-স্বল্প জানে, তাকেও বলতে যাবেন না।

টাকা পয়সা সংক্রান্ত বিষয়ঃ

আপনার সঙ্গীর মাসিক আয় কত, ব্যবসায় কেমন লাভ থাকে বা বেতন কেমন পান তা কাউকে বলবেন না। আপনারা কোথায় কত টাকা বিনিয়োগ করছেন, তাও যেন কেউ না জানে।

এমনকি সম্পর্কের জটিল সময়ে অর্থাৎ আপনারা যদি সেপারেশনে থাকেন, সে বিষয়ে নিয়েও কারও কাছে মুখ খুলবেন না।

ঘনিষ্ঠতার কথাঃ

নিজেদের ঘনিষ্ঠতার কথা বাইরে প্রকাশ করলে তা দুজনের জন্যই ভীষণ অসম্মানজনক ব্যাপার। একান্ত কথাগুলো দুজনের ভেতরেই সীমাবদ্ধ রাখুন। নিজেদের সম্পর্কের কথা প্রকাশ না করার পাশাপাশি অন্যদের সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতার কথা শোনাকেও এড়িয়ে চলুন।

এতে আপনার মনের পবিত্রতা বাড়বে। বাড়বে আপনার সম্পর্কের প্রতি আপনাদের মর্যাদাও। মনে রাখবেন, যে সম্পর্ক যত গোপন, সে সম্পর্ক তত গভীর তত সুন্দর।

ফারদিন সানি/ফই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LIVE

অন্ধদের দৃষ্টি ফেরাবে বায়োনিক চোখ
আপনার ফোনে আড়ি পাতলে কিভাবে বুঝবেন?
দিলীপের পরকীয়ার যাতনা আমৃত্যু সয়েছেন সায়রা
গাঁজা সেবনকারীর মন ও মস্তিষ্কে কি ঘটায়?