বাংলাদেশ, শীর্ষ খবর

অনিয়ম-দুর্নীতিতে আটকে আছে উপকূলীয় বেড়িবাঁধ সংস্কার

উপকূলীয় বেড়িবাধ এ অঞ্চলের মানুষের জন্য জীবনের নিশ্চয়তা। কিন্তু পানি উন্নয়ন বোর্ড ও ঠিকাদারদের অনিয়ম-দুর্নীতিতে টেকসই বাঁধ স্বপ্নই রয়ে গেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, মাটি ফেলার নামে গাছ কাটা হচ্ছে, সংস্কারের নামে লোপাট কোটি কোটি টাকা।

সাতক্ষীরার উপকূল। শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়ন। সিডর, আইলা, আম্পান এখানে নিত্যসঙ্গী। ঘুর্ণিঝড় আসে যায়, লন্ডভন্ড হয় সাজানো সংসার।

বেড়িবাধ ঘেষা চুনা গ্রামের ছায়েরা বেগমের ঘর ভেঙেছে ইয়াসে। এখনো ঘুর্ণিঝড়ের তান্ডবের দাগ রয়েছে ইদ্রিস মিয়ার ভিটায়। এখানে মানুষের একটাই দাবি – টেকসই বেড়িবাঁধ।

ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধটি সংস্কারে চার কোটিরও বেশি টাকার প্রকল্প আছে সরকারের। কিন্তু ঠিকাদার কাজ শেষ করেনি এখনো।

বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের আরেকটি বেড়িবাধে সংস্কার যতটা হয়েছে, তার চেয়ে বেশি পুকুরচুরি। কন্ট্রাক্টে- সাবকন্ট্রাক্টে ঝুলে আছে ঊপকূলের মানুষের রক্ষাকবচ।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গ্যালাক্সি এ্যাসোসিয়েট বেড়িবাঁধটি সংস্কারের দায়িত্ব পায়। শ্যামনগর পানি উন্নয়ন বোর্ডের এক কর্মচারি খোরশেদ আলমকে কাজটি সাব কন্ট্রাক্ট দেয় তারা। আবার তিনি এটি সাব কন্ট্রাক্টে দিয়েছেন আরেক স্থানীয় ঠিকাদারকে।

এছাড়া আছে নানা রকম অনিয়মের অভিযোগ আছে পাউবোর কর্মচারী খোরশেদের বিরুদ্ধে। বেশিরভাগ জিও ব্যাগে বালু দেয়া হচ্ছে কম। সংস্কারে কোনো লাভ হচ্ছে না, উপকূলীয় বেড়িবাধ ঝুঁকিতেই থেকে যাচ্ছে।

পাউবোর শ্যামনগর কার্যালয়ে পাওয়া যায়না খোরশেদ আলমকে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেন দায়িত্বরত কর্মকর্তা।

এদিকে, বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল মনে করেন, স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিত্ব না থাকাতেই এমন অবস্থা।

বিশাল বেড়িবাধের অল্প একটু যায়গা দূর্বল হলেই ঢুকে পড়ে জোয়ারের পানি, ভেস্তে যায় পুরোটা উদ্যোগ। সরকার প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা খরচ করছে বেড়িবাঁধ রক্ষায়। কিন্তু অনিয়ম-দুর্নীতির বানের জলে ভেসে যাচ্ছে সব সংস্কার কার্যক্রম।

সাইফুল শাহীন/ফই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

LIVE

‘কাঁচা বাদাম’ গান ও একজন ভুবন বাদ্যকার
মা ও স্ত্রীর মধ্যে ভারসাম্য রাখতে চান?
অন্ধদের দৃষ্টি ফেরাবে বায়োনিক চোখ
আপনার ফোনে আড়ি পাতলে কিভাবে বুঝবেন?